শনিবার, ২৫-নভেম্বর ২০১৭, ০৪:২৪ পূর্বাহ্ন
  • স্বাস্থ্য
  • »
  • বিএসএমএমইউ’র ক্যান্টিনে বস্তাভর্তি পচা মুরগি, ক্ষুব্ধ চিকিৎসকরা

বিএসএমএমইউ’র ক্যান্টিনে বস্তাভর্তি পচা মুরগি, ক্ষুব্ধ চিকিৎসকরা

sheershanews24.com

প্রকাশ : ০৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ০৮:৪৯ পূর্বাহ্ন

শীর্ষনিউজ, ঢাকা : রোগী, চিকিৎসক ও শিক্ষার্থীদের খাওয়ানোর জন্যে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) টিএসসি ক্যান্টিনে বস্ত ভর্তি করে প্রায় ২শ’ পিস পচা মুরগি আনার অভিযোগ পাওয়া গেছে। গতকাল দুপুর পৌনে তিনটার দিকে ক্যান্টিনের একজন বেয়ারা একটি বস্তা নিয়ে ক্যান্টিনের পেছনে রান্নাঘরে প্রবেশ করে। সে যখন ক্যান্টিনের ভেতর দিয়ে রান্না ঘরের দিকে যাচ্ছিল তখনই পুরো এলাকায় দুর্গন্ধ ছড়িয়ে পড়ে। এসময় ১০/১২ জন চিকিৎসক দুপুরের খাবার খাচ্ছিলেন। দুর্গন্ধের মাত্রা এতটাই বেশি যে, যারা খাবার খাচ্ছিলেন তাদের সবাই খাওয়া বন্ধ করে নাক চেপে ধরেন। অনেকেই বমিভাব রোধ করার চেষ্টা করেন।

এ সময় তারা ক্যান্টিন সুপারভাইজার জাহিদের কাছে জানতে চান ওই বস্তায় কি ছিল। প্রথমে তিনি প্রসঙ্গ এড়িয়ে যান।

পরে শিক্ষার্থী চিকিৎসকরা রান্নাঘরে ঢুকে বস্তা খুলে দেখেন বস্তাভর্তি মুরগির পচা মাংস। এ সময় তারা ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেন।

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী শিক্ষার্থী চিকিৎসকরা জানান, এ ক্যান্টিন নিয়ে তাদের অভিযোগের শেষ নেই। এখানে নিন্মমানের খাবার বেশি দামে বিক্রি করা হয়। অথচ পাশেই শিক্ষকদের ক্যান্টিনে মানসম্পন্ন খাবার অনেক কম দামে সরবরাহ করা হয়। এ পর্যন্ত বেশ কয়েকবার বিষয়টি কর্তৃপক্ষকে জানানো হলেও তেমন কোনো ব্যবস্থা নেয়া হয়নি।

সর্বশেষ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসির হস্তক্ষেপে একটি মূল্য তালিকা টানানো হয়। কিন্তু তাও মানা হচ্ছে না।

তারা জানান, এখানের খাবার চিকিৎসক, রোগী এমনকি শিক্ষকরাও খেয়ে থাকেন। এখানে ক্যান্টিন সুপারভাইজার পচা মুরগি আনেন কোন সাহসে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বস্তাভর্তি মরা মুরগি দেখে শিক্ষার্থীরা ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেন। এ সময় ক্যান্টিন সুপারভাইজার জাহিদ বলেন, বাসার ফ্রিজ নষ্ট হওয়ায় এগুলো এখানে ফ্রিজে রাখতে আনা হয়েছে। এগুলো ক্যান্টিনের নয়। কিন্তু বাসায় দুশ’ পিস মুরগির মাংস দিয়ে কি করবেন জানতে চাইলে আর কোনো কথা বলতে পারেননি জাহিদ।
চিকিৎসকরা অভিযোগ করেন, ক্যান্টিনটি কোনো টেন্ডার ছাড়াই জাহিদ পরিচালনা করছেন। প্রশাসনের এ ধরনের উদাসীনতার কারণে তারা পচা মুরগি ক্যান্টিনে রাখার সাহস পেয়েছে।

এ ঘটনা তৎক্ষণাৎ বিশ্ববিদ্যালয়ে উপস্থিত অতিরিক্ত রেজিস্টার অধ্যাপক ডা. আসাদুল ইসলাম, ডেপুটি প্রক্টর শেখ আবদুল্লাহ আল মামুন, টিএসসি ক্যান্টিন কমিটির সেক্রেটারি অধ্যাপক ডা. আতিকুর রহমানকে জানানো হয়। তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে পচা মুরগির মাংস ফেলে দিতে বলেন এবং ক্যান্টিন বন্ধ করে দেন।

শীর্ষনিউজ/এসএসআই