শনিবার, ২৫-নভেম্বর ২০১৭, ০১:৪৩ অপরাহ্ন

১৫ বছর বয়সে গণিতে গ্রাজুয়েশন!

sheershanews24.com

প্রকাশ : ১৫ জুলাই, ২০১৭ ০৩:৫০ অপরাহ্ন

শীর্ষ নিউজ ডেস্ক: যেকোনো বয়সে যেকেউ কিছু অর্জন করতেই পারে। তাই বলে মাত্র ১৫ বছর বয়সে গণিতে ফার্স্ট ক্লাস গ্রাজুয়েশন! বিষয়টি বিস্ময়কর বটে। হ্যাঁ বৃটেনের ১৫ বছর বয়সী ইয়াশা অ্যাশলে এ কাজটি ঘটিয়ে ফেলেছে। ১৫তম জন্মদিনের মাত্র একমাস পরেই সে গণিতে ডিপ্লোমা করেছে। এর মধ্য দিয়ে লন্ডনে কম বয়সী যত গ্রাজুয়েট আছে তার মধ্যে নিজের নামটিও সে লিখিয়ে দিয়েছে। তাই তাকে তরুণ ‘আইনস্টাইন’ হিসেবে বর্ণনা করছেন কেউ কেউ। কেউ কেউ আবার তার ডাক নাম দিয়েছেন ‘মানব ক্যালকুলেটর’। মঙ্গলবার তাকে ইউনিভার্সিটি অব লিসেস্টার গণিতে বিএসসি ডিগ্রি প্রদান করেছে। সে এ পরীক্ষায় শতকরা ৯২ ভাগ নম্বর পেয়ে এ ডিগ্রি অর্জন করেছে। তাকে ডিগ্রি প্রদান অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন তার পিতা মুসা (৫৪)। তিনি ইরানি। তার একমাত্র সন্তান ইয়াশা অ্যাশলে। তাকে দেখাশোনা করার জন্য একাউন্টের চাকরি ছেড়ে দিয়েছেন তিনি। তারই সহযোগিতায় ইয়াশা এ-লেভেল সম্পন্ন করেছে মাত্র আট বছর বয়সে। এখন তার পরিকল্পনা লিসেস্টারেই গণিতের ওপর পিএইচডি ডিগ্রি অর্জন। এ কাজটি এই সেপ্টেম্বরেই শুরু করতে চায় সে। এরপর হতে চায় গণিতের গবেষক। তবে তার পিতা বলেছেন, তার ছেলে অ্যাশলের একমাত্র নেশা গণিত নিয়ে নয়। এমনকি সে সব সময়ও পড়াশোনা করেন না। কিন্তু ক্লাসে অন্যদের চেয়ে অনেক বেশি গ্রেড নিয়ে সে থাকতো সবার উপরে। এ নিয়ে তার অহংকার নেই। সে সবার সঙ্গে মেশে। বন্ধুত্ব করে। তাই সবার কাছে সে জনপ্রিয়। তার জন্য আমি গর্বিত। তার এই অর্জনের জন্য আমি অনেক বছর অপেক্ষা করেছি।
অ্যাশলে এখনও বয়সে টিনেজার। পরীক্ষার আগে সে কখনো নার্ভাস হয় নি। সে বলেছে, আমার প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার দিনগুলো থেকেই আমি চেয়েছি অল্প বয়সেই বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়াশোনা শুরু করতে। ১৫ বছর বয়সে আমি সেই ডিগ্রি নিতে পেরেছি। এ বয়সে অন্য শিক্ষার্থীরা জিসিএসই পটরীক্ষা দেয়। আমার জন্য যে সুযোগ করে দেয়া হয়েছে তার জন্য আমি কৃতজ্ঞ। উল্লেখ্য, ইয়াশা অ্যাশলের বয়স যখন এক বছর তখনই তার পিতামাতা আলাদা হয়ে যান। ইয়াশা অল্প বয়সেই পড়াশোনা শুরু করে। সে কথা বলতে পারে ফ্রেঞ্চ, আরবি ও ফার্সিতে। ১০ বছর বয়সে সে এ-লেভেল পরিসংখ্যানে এ-স্টার অর্জন করে। আট বছর বয়সে গণিতে এ-স্টার ও পিউর ম্যাথে এ গ্রেড অর্জন করে। বিশ্বের মধ্যে সম্ভবত সেই সবচেয়ে কম বয়সী বালক যে, গণিতে এ অথবা এ-স্টার গ্রেড অর্জন করেছে। এক্ষেত্রে সে শতভাগ নম্বর পেয়েছে। বাকি ছয়টি বিষয়ে পেয়েছে শতকরা ৯৯ ভাগ নম্বর। ইয়াশা অ্যাশলে তখন লিসেস্টারে ফোলভিলে জুনিয়র স্কুলে পড়াশোনা করতো। কিন্তু ওই স্কুলের প্রধান শিক্ষককে না জানিয়েই তার পিতা তাকে এ-লেভেল পরীক্ষা দেয়ান প্রাইভেটভাবে। এরপর স্থানীয় একটি কলেজে নিয়ে যান তাকে। যদিও ইয়াশার অর্জন বিস্ময়কর তবে সেই একমাত্র ব্যক্তি নয়, যে এমন বয়সে ফার্স্ট ক্লাস ডিগ্রি অর্জন করেছে। তার আগে ১৯৮৫ সালে অক্সফোর্ড থেকে গণিতে ডিপ্লোমা করতে গিয়ে ফার্স্ট ক্লাস অর্জন করে মাত্র ১৩ বছর বয়সী রুথ লরেন্স। তার বাড়ি হাডারসফিল্ডে। সেখানে তার পিতা তার ওপর নির্যাতন করতো। এখন তার বয়স ৪৫ বছর। পরিবার নিয়ে বসবাস করছে ইসরাইলের জেরুজালেমে। সেখানে হিব্র“ ইউনিভার্সিটিতে গণিতের শিক্ষকতা করছেন তিনি।
শীর্ষ নিউজ/জে