শনিবার, ২৫-নভেম্বর ২০১৭, ০১:২১ অপরাহ্ন
  • জাতীয়
  • »
  • বিদ্যুৎ চুরির সাজা-উৎপাদন সংস্কারের বিল সংসদে

বিদ্যুৎ চুরির সাজা-উৎপাদন সংস্কারের বিল সংসদে

sheershanews24.com

প্রকাশ : ১৪ নভেম্বর, ২০১৭ ০৭:০১ অপরাহ্ন

শীর্ষনিউজ, ঢাকা: বিদ্যুৎ চুরির সাজা বাড়ানো, উৎপাদন, সঞ্চালন ও বিতরণ ব্যবস্থার সংস্কার এবং সেবা নিশ্চিত করতে নতুন আইনের খসড়া সংসদে উঠেছে।

মঙ্গলবার ‘বিদ্যুৎ বিল-২০১৭’ সংসদ উত্থাপন করেন বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু।

বিলটি ৩০ দিনের মধ্যে পরীক্ষা করে সংসদে প্রতিবেদন দেয়ার জন্য বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটিতে পাঠানো হয়।

১৯১০ সালের ‘ইলেকট্রিসিটি অ্যাক্ট’ সংশোধন করে নতুন আইন করতে বিলটি সংসদে তোলা হয়েছে, যেখানে বিদ্যুতের ব্যবস্থাপনায় একটি নতুন প্রতিষ্ঠান করার কথাও বলা হয়েছে।

প্রস্তাবিত আইনে বিদ্যুৎ চুরির জন্য সর্বোচ্চ তিন বছরের কারাদণ্ড বা চুরি হওয়া বিদ্যুতের মূল্যের দ্বিগুণ বা ৫০ হাজার টাকা জরিমানার (যেটা বেশি হয়) বিধান রাখা হয়েছে। আগে এ অপরাধের জন্য ১০ হাজার টাকা জরিমানার বিধান ছিল।
চুরি ঠেকাতে বিদ্যুৎ খাতের কর্মকর্তা-কর্মচারীদেরও শাস্তির আওতায় আনার কথা বলা হয়েছে প্রস্তাবিত আইনে। এছাড়া বিদ্যুৎ স্থাপনায় নাশকতা করলে সর্বোচ্চ ১০ বছরের কারাদণ্ড এবং ১০ কোটি টাকা পর্যন্ত জরিমানার বিধান রাখা হয়েছে প্রস্তাবিত আইনে।

খসড়া আইনে বলা হয়েছে, এই আইনের অধীন কোনো পূর্তকর্ম সম্পাদনকালে লাইসেন্সি কোনো ক্ষতি, অনিষ্ট বা অসুবিধার সৃষ্টি করলে ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তিকে অথবা বৈদ্যুতিক টাওয়ার নির্মাণের জন্য ব্যবহৃত জমির জন্য ভূমির মালিককে বিধি দ্বারা নির্ধারিত পদ্ধতিতে ক্ষতিপূরণ দেবে।

বিদ্যুতের কোনো লাইন মেরামত, সংস্কার বা নতুন সরবরাহ লাইন বসানোর কাজে যাতে টেলিফোন, ইন্টারনেট বা সাবমেরিন কেবলের কোনো ক্ষতি না হয়, সেজন্য কাজ শুরুর আগেই সংশ্লিষ্ট সেবা প্রতিষ্ঠানগুলোকে নোটিস দিয়ে জানানোর বিধান যুক্ত করা হয়েছে খসড়া আইনে।

শীর্ষনিউজ২৪ডটকম/এইচএস